Tue. May 11th, 2021
Salma adil- MD at Melonades & ED at Top of Minds

বিশ্বে লিঙ্গ বৈষম্য হ্রাসে এশিয়ার শীর্ষে রয়েছে বাংলাদেশ। নারী ক্ষমতায়নের রূপকার হিসাবে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আজ বিশ্বব্যাপী সম্মানিত। তার জন্ম মাস সেপ্টেম্বরে হারনেট নিউজ “WOMEN LEADS, Inspiration HPM” নামক কলামের মাধ্যমে এমন সব নারীদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে চায় যারা এই অভূতপূর্ব ক্ষমতায়ন এবং অগ্রগতিতে বলিষ্ট ভূমিকা পালন করে চলছে । তার ধারাবাহিকতায় HerNet News এর ” পাতায় এবারের আলোচনাপর্বে অতিথি হিসেবে যুক্ত হয়েছিলেন কর্পোরেট জগতে অভূতপূর্ব সাফল্য ও সামাজিক দায়বদ্ধতা নিয়ে সালমা আদিল।

প্রশ্ন : করোনার এই ক্রান্তিকালীন পরিস্থিতিতে কেমন যাচ্ছে আপনার সময় ?

বাংলাদেশে মহামারী শুরু হবার পর প্রায় প্রতিদিনই কারো না কারো মৃত্যু সংবাদ শুনতে হচ্ছে, যেটা ভীষণ বেদনাদায়ক। ছোটবেলায় মুরব্বিদের কাছে প্লেগ, কলেরা, গুটি বসন্ত, স্প্যানিশ ফ্লু সহ নানান মহামারীর কথা শুনতাম, কিন্তু আমাদের জীবদ্দশায় করোনার মতো এমন ভয়াবহ এক বৈশ্বিক মহামারীর অভিজ্ঞতার মধ্য দিয়ে যেতে হবে এটা কখনো চিন্তাও করিনি। এর ভয়াবহতা যেন ভয়ানক দুঃস্বপ্নকেও হার মানায়। কিন্তু তারপরও বাস্তবতাকে মেনে নিয়েই এগিয়ে যেতে হচ্ছে। মহামারীর কারণে নিত্যদিনের জীবনাচরণে আমূল পরিবর্তন হয়েছে। এখন সার্বক্ষণিকভাবে বাসাতেই থাকা হচ্ছে এবং যাবতীয় অফিসিয়াল কার্যক্রম অনলাইনেই সারতে হচ্ছে। ‘নিউ নরমাল’ এই পরিস্থিতির সাথে খাপ-খাইয়ে নিতে একটু সময়ও লেগেছে বটে। মহামারীর শুরু থেকেই বাসায় আছি, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছি। সৃষ্টিকর্তার অশেষ রহমতে সবাই সুস্থও আছি। পাশাপাশি ‘সেফহ্যান্ডস’ এবং ‘সালমা-আদিল ফাউন্ডেশন’ এর মাধ্যমে যতটা সম্ভব চেষ্টা করছি বিপদগ্রস্ত অসহায় মানুষের পাশে থাকার। সত্যি বলতে, মহাবিপর্যয়ের এই সময়ে আসলে বেঁচে থাকাটাই অনেক কিছু। করোনা মহামারীর এতো নেতিবাচক প্রভাবের পরও কিছু ইতিবাচক দিকও তৈরি হয়েছে। বিশেষত: আমরা যারা নানান ব্যস্ততায় সন্তানদেরকে তেমন সময় দিতে পারতাম না, তারা সময় দিতে পারছি। যান্ত্রিক জীবনের বাইরে প্রকৃতি, মানুষ এবং নিজেকে নিয়ে ভাবার ফুসরত পাচ্ছি। এটাকে অস্বীকার করার অবকাশ নেই।

প্রশ্ন : পেশাগত জীবনে অসংখ্য সফলতা। যেসব সংস্থার সাথে সম্পৃক্ততা রয়েছে সেগুলো সম্পর্কে একটু জানতে চাই।

‘সফলতা’ ব্যাপারটা যদিও খুবই আপেক্ষিক একটি বিষয়, তারপরও যেটা বলতে পারি, সেটা হচ্ছে- সমাজ ও মানুষের জন্য ভালো কিছু করার চেষ্টা করে যাচ্ছি। পেশাগত জীবনে আমি মূলত: টপ অব মাইন্ড (Top of Mind) এর প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (CFO) এবং নির্বাহী পরিচালক (ED) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। পাশাপাশি মাস্টহেড পিআর (Masthead PR) এর প্রধান অর্থ কর্মকর্তা (CFO), ট্রাকার (Tracker) এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (CEO) এবং মেলোনেডস (Melonades) এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক (Managing Director) হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। সেফ হ্যান্ডস (Safe Hands) এবং সালমা-আদিল ফাউন্ডেশন (Salma-Adil Foundation) নামের দু’টি সামাজিক দাতব্য প্রতিষ্ঠানও রয়েছে আমার। করোনা মহামারীর এই কঠিন সময়ে এই দু’টো সংগঠনের মাধ্যমেও আমরা অসহায় মানুষের পাশে থাকার প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি। এর বাইরে, বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের কল্যাণে চট্টগ্রামে একটি ‘অটিজম সেন্টার’ও প্রতিষ্ঠা করেছি আমি। এছাড়া চট্টগ্রামের চন্দনাইশে অবস্থিত এসএন গার্লস প্রাইমারি এবং হাই স্কুলের সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছি। আর ‘হিরোজ ফর অল’ (Hero’s For All) এ দায়িত্ব পালন করছি বোর্ড সদস্য হিসেবে।

প্রশ্ন : নারী হওয়ায় পরিবার, কর্মস্থল কিংবা সমাজে কি ধরনের বৈষম্য ও প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে হয়েছে ?

বাংলাদেশের নারী হিসেবে আমি অনেকটাই ভাগ্যবতী এই অর্থে যে, পারিবারিক দিক থেকে আমাকে তেমন একটা বৈষম্যের সম্মুখীন হতে হয়নি। বরং আজকে আমার এখানে আসার পেছনে অনেকটাই অবদান বলা চলে আমার পরিবারের। সেটা বাবার বাড়ির দিক থেকেও, শ্বশুর বাড়ির দিক থেকেও। তবে পিতৃতান্ত্রিক সমাজে বসবাস করায় সামাজিক ও কর্মজীবনের কিছু কিছু ক্ষেত্রে একটু তো প্রতিকূলতার মুখোমুখি হতে হয়েছেই। কারণ আমরা যখন চাকরি শুরু করেছি, তখন সমাজের নানান ক্ষেত্রেই লৈঙ্গিক বৈষম্যটা বেশ চোখে পড়ার মতোই ছিলো এবং এটা অনেকে স্বাভাবিকভাবেই নিতো। মেয়েরা উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করবে; ঘরের বাইরে গিয়ে কাজ করবে-এটাকে সহজভাবে নেওয়া হতো না। এছাড়া কর্মক্ষেত্রে নেতৃত্ব প্রদান, সিদ্ধান্ত গ্রহণ সহ গুরুত্বপূর্ণ নানান ক্ষেত্রে নারীরা পুরুষের চেয়ে কম যোগ্যতাসম্পন্ন বলে ভাবা হতো। কিন্তু এখন সময় বদলেছে। সমাজে শিক্ষা-দীক্ষা ও সচেতনতার হার বেড়েছে। নানান ক্ষেত্রে নারীরা আজ তাদের মেধা ও যোগ্যতার স্বাক্ষর রেখে চলেছেন। আগামী দিনে এভাবেই ধীরে ধীরে নারী-পুরুষের বৈষম্য ঘুচে যাবে বলে আমার বিশ্বাস।

প্রশ্ন : ক্যারিয়ারে প্রাপ্তির খাতা অনেক বড়। উল্লেখযোগ্য কোনো কৃতিত্বের কথা পাঠকের সাথে শেয়ার করতে চান ?

গত প্রায় দুই দশকের কর্মজীবনে সমাজের বিভিন্ন স্তরের নানান শ্রেণি-পেশার মানুষের সাথে মেশা, নতুন নতুন পরিবেশে কাজ করা এবং মানুষের ভালোবাসায় সিক্ত হবার চমৎকার অভিজ্ঞতা লাভের সুযোগ আমার হয়েছে। এভাবে মানুষের সাথে মেশা, তাদের জন্য কাজ করাসহ সার্বিকভাবে সমাজে অবদান রাখতে পারাটাই ভীষণ তৃপ্তির। বিশেষত: সেফ হ্যান্ডস এবং সালমা-আদিল ফাউন্ডেশন প্রতিষ্ঠা করার পর তৃণমূলের মানুষের কাছাকাছি আসার পথটা আরও সুগম হয়েছে। চলমান করোনা মহামারীর মধ্যে মানবিক ও সামাজিক দায়বদ্ধতার জায়গা থেকে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়াতে গিয়ে সহজ-সরল মানুষগুলোর যে ভালোবাসা আমরা পেয়েছি, সেটা সত্যিই অতুলনীয়। সাধারণ মানুষের এই ভালোবাসা আর দোয়া-ই আমাদের চলার পথের অনুপ্রেরণা ও বেঁচে থাকার আশা যোগায়।

প্রশ্ন : নারী ক্ষমতায়নে পুরুষ কি ভূমিকা পালন করতে পারে ?

নারী ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে পুরুষের ভূমিকা খুবই গুরুত্বপূর্ণ বলে আমি মনে করি। সমাজের একজন পুরুষ কেবলই পুরুষ নন; তিনি একাধারে কোনো না কোনো নারীর বাবা, ভাই, বন্ধু, প্রেমিক, স্বামী, পুত্র, কিংবা সহকর্মী। কাজেই সমাজে একজন নারীর এগিয়ে যাওয়ার প্রতিটি ক্ষেত্রেই সে গুরুত্বপূর্ণ সহযোগী হতে পারে। হতে পারে সাহস ও অনুপ্রেরণার উৎস। সব ধরণের হীনমন্যতা ও গোঁড়ামী ঝেড়ে ফেলে নারী-পুরুষ পরস্পর পরস্পরের বন্ধু ও সহযোগী হয়ে এগিয়ে যেতে পারলে যেমন নারী ক্ষমতায়ন নিশ্চিত, তেমনি দেশও এগিয়ে যাবে।

প্রশ্ন : নেতৃত্ব দানের ক্ষেত্রে সালমা আদিল নিজেকে কিভাবে মূল্যায়ন করে ?

সঠিকভাবে নেতৃত্ব প্রদান করা আসলে খুবই কঠিন কাজ। তবে এক্ষেত্রে বিচলিত না হয়ে বরং ধৈর্য ও বিচক্ষণতার সাথে সিদ্ধান্ত গ্রহণ অত্যন্ত জরুরী বলে আমি মনে করি। পাশাপাশি সততা, একাগ্রতা, একনিষ্ঠতা, নিয়মানুবর্তিতা, সময়ানুবর্তিতা এবং বৈষম্যহীন ভারসাম্য বজায় রাখাও খুবই জরুরী। এই বিষয়গুলো মাথায় রেখেই কর্মক্ষেত্রে আমি আমার সর্বোচ্চটা দেয়ার প্রয়াস চালিয়ে যাচ্ছি।

প্রশ্ন : শত ব্যস্ততার মাঝেও নিজেকে কিভাবে রিল্যাক্স রাখেন ?

ব্যস্ততা যতই থাকুক, নিজের স্বার্থেই রিল্যাক্স থাকা জরুরী। আর সে কারণেই প্রচণ্ড কাজের চাপের মাঝেও নানান উপায়ে আমি রিল্যাক্স থাকার চেষ্টা করি। ওয়াক্তমত নামাজ আদায় করাটা মুসলমানদের জন্য মানসিক অবসাদ ও ক্লান্তি কাটানোর বড় একটা উপায় হতে পারে বলে আমি মনে করি। সে জন্য শত ব্যস্ততার মাঝেও আমি নিয়ম করে ওয়াক্তমত নামাজ আদায় করি। এতে বেশি সময় ব্যয় হয় না, কিন্তু মনটা সতেজ থাকে। এছাড়া পরিবার ও বন্ধু-বান্ধবদেরকে সময় দিলেও মেজাজ ফুরফুরে থাকে। নিজের একান্ত সময় প্রয়োজন হলে বই পড়ি, গান শুনি এবং সিনেমা দেখি। সব সামলানোর পরও এভাবেই বেশ ভালো থাকা যায়।

প্রশ্ন: এশিয়ার প্রথম নারীভিত্তিক চ্যানেল হিসেবে যাত্রা শুরু করেছে হারনেট। কেমনটা প্রত্যাশা করছেন ?

এটা অত্যন্ত আনন্দের এবং গর্ব করার মতই একটা খবর যে, সমগ্র এশিয়া মহাদেশের মধ্যে প্রথম নারীভিত্তিক চ্যানেলটি আমাদের; এই বাংলাদেশের। স্বভাবতই এই চ্যানেলটির জন্য রইলো সর্বাঙ্গিন মঙ্গল কামনা। এই মহাদেশের প্রথম নারীভিত্তিক চ্যানেল হওয়ায় হারনেটের কাছে স্বাভাবিকভাবেই প্রত্যাশার মাত্রাটাও একটু বেশি। আশা করছি, হারনেট সেটা পূরণ করতেও সক্ষম হবে। এটাও প্রত্যাশা যে, হারনেট কেবল বাংলাদেশী নারীদের গল্পই নয়, বরং গোটা বিশ্বের নারী সমাজ-বিশেষত: এশিয়া মহাদেশের নারীদের যাবতীয় গুরুত্বপূর্ণ ও জরুরী বিষয়াদী দর্শকের সামনে তুলে ধরতে পারবে। আর এভাবেই নারীমুক্তি, নারী অগ্রগায়ন ও ক্ষমতায়নের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখে যাবার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক পরিমণ্ডলে হারনেট তার খ্যাতি সম্প্রসারণ করতে সক্ষম হবে বলে আমার বিশ্বাস।

প্রশ্ন : হারনেটের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান সম্পর্কে আপনার অভিমত এবং উপদেশ জানতে চাইবো।

হারনেটের মতো প্রগতিশীল ও চমৎকার একটি নারী প্লাটফর্ম গড়ে তোলার উদ্যোগ যিনি নিতে পারেন, তার ব্যাপারে নতুন করে কিছু বলাই বাহুল্য। আলিশার চমৎকার ব্যক্তিত্ব এবং বহুমুখী প্রতিভা আমার মতো অনেককেই মুগ্ধ করে। আরও মুগ্ধ হই তার ধৈর্য্য, কাজের প্রতি প্যাশন এবং পরিশ্রম করার ক্ষমতা দেখে। এগুলো রীতিমত বাকিদের অনুপ্রাণিত করে। আলিশা এভাবেই তার কাজ চালিয়ে যেতে থাকুক এবং গোটা দুনিয়ার নারীদের জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে উঠুক, এটাই প্রত্যাশা।

QUICK NOTE- ঝটপট উত্তর

প্রশ্ন : Strength কি ?
Confidence
প্রশ্ন : Weakness কি ?
Kindness

প্রশ্ন : কখন খুব রাগ হয় ?
কেউ টাইম মেনটেইন না করলে।

প্রশ্ন : কোন বিষয়টা খুব আবেগি করে ফেলে ?
My Family My Children and my parents

প্রশ্ন : প্রিয় মোবাইল আ‍্যাপ্স কি ?
Pinterest

প্রশ্ন : Netflix এর প্রিয় সিরিজ কিংবা পছন্দের কোনো অনুষ্ঠান ?
Masaba Masaba

প্রশ্ন : পছন্দের রান্না Aflatun এবং প্রিয় খাবার ?.
Chittagonian traditionally food like Beef Kalo Bhuna.

By HerNet

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *