Tue. May 11th, 2021
প্রশংসায় ভাসছেন ঢামেকের ৩ ইন্টার্ন চিকিৎসক

ডিউটিরত অবস্থায় হঠাৎ নাচের ভাবনা কেন এল তিন চিকিৎসকের মাথায়? জানালেন, হাঁপিয়ে ওঠা হাসপাতালের বন্দিজীবনে চিকিৎসকদের কিছুটা স্বস্তি দিতেই এই ভিডিও। অনেক ভাবনা-চিন্তা নয়, কাজের ফাঁকে কথা প্রসঙ্গে ঢাকা মেডিকেলের তিন চিকিৎসক সহকর্মী এই নাচের পরিকল্পনা করেন।

মাত্র ১৫ মিনিটের ভাবনা, এরপরই নাচ। ওটি বয়ের করা ভিডিওটি ছড়িয়ে গেছে সারা দুনিয়ায়। বাকিটা সবারই জানা। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে মূল ধারার গণমাধ্যম, প্রশংসায় ভাসছেন ঢাকা মেডিকেলের ৩ ইন্টার্ন চিকিৎসক।

সম্মুখসারির কোভিড যোদ্ধাদের একঘেয়ে জীবন থেকে মুক্তি দিতেই এমন উদ্যোগ, জানালেন ভিডিওটিতে অংশ নেয়া চিকিৎসকরা। তবে ব্যক্তিগত ফেসবুকের জন্য তৈরি এভাবে সাড়া ফেলবে স্বপ্নেও ভাবেননি তারা।

ঢামেকের ইন্টার্ন চিকিৎসক শাশ্বত মিস্ত্রি চন্দন জানান, নিজেরাই আমরা কোরিওগ্রাফার, নিজেরাই আমরা নাচের সঙ্গে হাত-পা দোলাব। সেখান থেকেই আমরা নাচটা ওঠায়। আর ওই নাচের ভিডিও বড় কোনও ক্যামেরা দিয়েও নয়, সাধারণ মোবাইল থেকেই করা হয়েছে বলেও জানা তিনি।    

অপর ইন্টার্ন চিকিৎসক আনিকা ইবনাত শামা জানান, করোনা পরিস্থিতির মধ্যে মূল ভূমিকা টা কিন্তু চিকিৎসকদেরই পালন করতে হবে। আমরা যদি চিকিৎসকদেরই মনোবলটা শক্ত রাখতে না পারি তাহলে কিন্তু আমরা এ যুদ্ধে হেরে যাব। 

প্রতিদিন কোনো না কোনো মৃত্যু, পরিবারের সদস্যদের অসুস্থতা, পিপিই পরে অদৃশ্য ভাইরাসের সঙ্গে লড়াই। প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তির মধ্যেও হাসিমুখে বেঁচে থাকাই সত্যিকারের বিজয় সেটিই বোঝাতে চেয়েছেন চিকিৎসকরা।

তাদের এই কর্মকাণ্ড বাংলাদেশের কোভিড যোদ্ধাদের ভেতরে সাহস দেবে এমনটাই প্রত্যাশা ঢাকা মেডিকেল কলেজ প্রধানের।

ঢাকা মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. টিটু মিয়া বলেন, তারা নিজেরাও কিন্তু যে কোনও মুহূর্তে ধাবিত হতে পারেন মৃত্যুমুখে। সব মায়া মমতাকে বাদ দিয়ে এই হাসপাতালে কাজ করছেন তারাও যে এমন একটা দুর্বিষহ পরিস্থিতিতে নেচে উঠতে পারেন, গেয়ে উঠতে পারেন সেটা বিশাল উদ্দীপনার কাজ। 

কোভিড যুদ্ধের শেষ দিন পর্যন্ত চিকিৎসকরা তাদের ন্যায্য অধিকার পাক। নিজে উদ্দীপ্ত থেকে চিকিৎসক ও রোগীদের উজ্জীবিত করুক এমনটাই প্রত্যাশা তরুণ এই ৩ চিকিৎসকের।

By HerNet

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *