Fri. Sep 30th, 2022
বিজিএমইএ নির্বাচন; ৬৫জন পুরুষ ক্যান্ডিডেট এর সাথে ৫জন মহিলা ক্যান্ডিডেট এর লড়াই

পুরোনো দুই শিবিরে ভাগ হয়ে নেতৃত্ব নির্বাচনের প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নেমেছে পোশাক রপ্তানিকারকদের সবচেয়ে বড় সংগঠন বিজিএমইএ।

গত ৪ মার্চ প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত হওয়ার পর ঘরোয়াভাবে প্রচার শুরু করেছেন সম্মিলিত পরিষদ ও ফোরাম নামে দুটি প্যানেলের প্রার্থীরা। পাশাপাশি ঘটা করে প্যানেল পরিচিতি অনুষ্ঠান করার প্রস্তুতিও করেন| এবারের নির্বাচনে ঢাকা ও চট্টগ্রামে সমিতির ৩৫টি পরিচালক পদের জন্য দুই প্যানেলের ৩৫ জন করে মোট ৭০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। যার মধ্যে রয়েছেন ৬৫জন পুরুষ ক্যান্ডিডেট এবং ৫জন মহিলা ক্যান্ডিডেট|

এই ৫জন মহিলা ক্যান্ডিডেট হলো:

FORUM PANEL CANDIDATES:

No description available.
রুবানা হক বিজিএমইএ, প্রেসিডেন্ট. ব্যবস্থা পরিচালক,মোহাম্মাদী গ্রুপ

ড. রুবানা হক ,বিজিএমইএ, সভাপতি

তিনি একজন বাংলাদেশী ব্যবসায়ী ও কবি। তিনি মোহাম্মদী গ্রুপের বর্তমান ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও বাংলাদেশ পোশাক প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বিজিএমইএ) এর নির্বাচিত প্রথম নারী সভাপতি ছিলেন। … তিনি ২০১৩ ও ২০১৪ সালে পরপর দুবার “বিবিসি ১০০ নারী” নিবন্ধে তার স্থান পেয়েছিলেন। তিনি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র আনিসুল হকের স্ত্রী। ২০০৬ সালে তিনি কবিতার জন্য সার্ক সাহিত্য পুরস্কার লাভ করেন। তিনি বর্তমানে কলকাতার যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি করছেন।

ফোরামের পক্ষ থেকে ইশতেহার ঘোষণা করেছেন বিজিএমইএর বর্তমান প্রেসিডেন্ট ও পরিচালক পদ প্রার্থী ড. রুবানা হক।  অনুষ্ঠানে সঞ্চালনা করেছেন ফোরামের আহ্বায়ক আসিফ ইব্রাহিম।
১৩ দফা ইশতেহারকে তিনভাগের প্রথম অংশে বর্তমান বিজিএমইএ নেতৃত্বে থাকা ফোরাম পর্ষদের অর্জন, দ্বিতীয় অংশে প্রক্রিয়াধীন কার্যক্রম এবং সবশেষে ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা রয়েছে তা তুলে ধরেন ড: রুবানা ।এর মধ্যে- বিজিএমইএর ভাবমূর্তি, ব্যবসা পরিচালন ব্যয় কমানো এবং সহজীকরণ, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প, রুগ্ন শিল্প ও এক্সিট পলিসি, পণ্যের দাম ও ক্রেতার জবাবদিহিতা, শিল্পের নিরাপত্তা ও নিজস্ব সক্ষমতা, বাজার সম্প্রসারণ, প্রযুক্তি সক্ষমতা, এলডিসি গ্রাজুয়েশন, দক্ষতা ও উদ্ভাবন, সাসটেইনেবিলিটি ও এসডিজি, শ্রমিক কল্যাণ এবং স্বচ্ছ-পরিচ্ছন্ন বিজিএমইএ অন্যতম।

No description available.
রানা লায়লা হাফিজ ট্রাউজার্স গার্মেন্টস

রানা লায়লা হাফিজ, ট্রাউজার্স গার্মেন্টস

১৯৯৭ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইংরেজিতে স্নাতকোত্তর শেষ করার পরে তিনি তার বাবার পোশাক এবং টেক্সটাইল ব্যবসায় কাজ শুরু করেন। উল্লেখযোগ্যভাবে তার বাবা জনাব হাফিজ আহমেদ মজুমদার বাংলাদেশের গার্মেন্টস শিল্পের অন্যতম ব্যাবসায়ী। 70 এর দশকের শেষ দিকে ফিরে প্রথম গার্মেন্টস কারখানা স্থাপন করেছিলেন।
রানা লায়লা হাফিজ এই খাতে গত ২৪ বছরে তিনি গার্মেন্টস শিল্পের চালনার পক্ষে ও অসাধারণ অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন। আজ তিনি সম্পূর্ণ সম্মতিতে চলমান 3 টি কারখানার ব্যবস্থাপনা পরিচালক।গার্মেন্টস শিল্প ছাড়াও তিনি পূবালী ব্যাংক লিমিটেডের পরিচালক (বাংলাদেশের বৃহত্তম বেসরকারী সেক্টর ব্যাংক) এবং চা ব্যবসায় জড়িত।

নারী শ্রমিকদের ক্ষমতায়ন শিক্ষা ও সার্বিক মঙ্গলের জন্য ফোরাম আমরা ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করে আসছি এবং এই ধারা অব্যহত রাখবো। এ ছাড়া কারখানার মধ্য ও উচ্চপর্যায়ে বিদেশিদের স্থলাভিষিক্ত করতে দেশীয়দের দক্ষতা, উন্নয়ন ও শ্রমিকদের উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধিতে দৃঢ় ভাবে দায়িত্ব পালন করবো ।

No description available.
ভিদিয়া অমৃত খান দেশ গার্মেন্টস লিমিটেড

ব্যারিস্টার ভিদিয়া অমৃত খান, দেশ গার্মেন্টস, পরিচালক, বিজিএমইএ

২০০৪ Inns Of Court School of Law থেকে বার অ্যাট ল। এলএল.বি অনার্স, কিংস কলেজ লন্ডন ২০০৩ |১৯৯৮ সালে জনাব মোহাম্মদ নুরুল কাদের মারা গেলে চরম অনিশ্চয়তায় পতিত হয় দেশ গার্মেন্টস এবং পরবর্তীতে ২০০৮ সালের উনার সুযোগ্য কন্যা ভিদিয়া অমৃত খান বিদেশ থেকে উচ্চশিক্ষা সম্পন্ন করে এসে দেশ গার্মেন্টস পরিচালনার দায়িত্ব গ্রহণ করেন এবং সফলতার সাথে তার বাবার গড়ে তোলা প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করে আসছেন। ভিদিয়া বলেন, সেসময়কার বেতন স্কেল থেকে বহুগুণ বেতন ধার্য করে মেধাবী প্রতিভাবানদের চাকুরী দিয়ে কোরিয়ায় প্রশিক্ষণ দিয়ে এনে তার প্রতিষ্ঠানের কর্মকাণ্ডের সুচনা করেন এবং তার মাধ্যমেই বাংলাদেশের পোশাক শিল্প আন্তর্জাতিক বাজারমুখী হতে শুরু করে।‘আমাদের প্রতিষ্ঠানে ৩৫-৩৬ বছরের পুরোনো অনেক শ্রমিক, কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন। প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা-কর্মচারীদের অনেকের সঙ্গে আমাদের সম্পর্কটা অনেকটাই পারিবারিক।

তিনি বলেন ‘বহির্বিশ্বে বাংলাদেশের তৈরি পোশাকের ভাবমূর্তি এখনো কিছুটা নেতিবাচক আছে । বিজিএমইএর নির্বাচনে জয়ী হলে আমি ইতিবাচক ভাবমূর্তি গড়তে কাজ করব। তিনি বলেন, পণ্য কেনায় ক্রেতাদেরকে নৈতিকতার বিষয়টি জোরদার করতে হবে। তাছাড়া টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত হবেনা। পরিবেশ বান্ধব উৎপাদন চাইলে তার জন্য উপযুক্ত দামও দিতে হবে।

SAMMALITA PARISHAD CANDIDATES:

No description available.
নীলা হোসনা আরা ক্রোনি গ্রুপ

মিসেস নীলা, ক্রোনি গ্রুপ

মিসেস নীলা ১৯৯৪ সালে ক্রোনি গ্রুপ প্রতিষ্ঠা করেছিলেন তার স্বামী এ এইচ আসলাম সানি সিআইপি এর সাথে। ২৭বছরে ক্রোনি গ্রুপটি দেশে ও আন্তর্জাতিক উভয় খ্যাতি অর্জনে শীর্ষস্থানীয় পোশাক প্রস্তুতকারক হয়ে উঠেছে। এটিতে প্রায় ২০,০০০ কর্মী রয়েছে। নীলা বিজিএমইএ বুনন বিষয়ক স্থায়ী কমিটিতে ও জড়িত ছিলেন। তিনি প্রাক্তন আঞ্চলিক চেয়ারপারসন এবং লায়ন ক্লাব আন্তর্জাতিক জেলা সম্মেলনের চেয়ারপারসন ছিলেন। তিনি মহিলা শ্রমিকদের জীবনযাত্রার মান উন্নয়নে কাজ করার গভীর ইচ্ছা প্রকাশ করেন। প্যানেল সভাপতি ফারুক হাসানের নেতৃত্বে গার্মেন্টস সেক্টরের বিকাশে সরকারের সাথে বিজিএমএকে সহায়ক শক্তি হিসাবে গড়ে তুলতে তাদের প্যানেল ঐক্যবদ্ধ।

No description available.
ব্যারিস্টার শেহরিন সালাম ঐশী পরিচালক এনভয় গ্রুপ

ব্যারিস্টার শেহরিন সালাম, এনভয় গ্রুপ

সম্মিলিত পরিষদের অধীনে দ্বিতীয় প্রজন্মের মধ্য থেকে প্রার্থী হয়েছেন এনভয় গ্রুপের পরিচালক ব্যারিস্টার শেহরিন সালাম ঐশী। শেহরিন সালামের বাবা আবদুস সালাম মুর্শেদী এবং বিজিএমইএর সাবেক সভাপতি। সেহরিন ডার্বি বিশ্ববিদ্যালয় (যুক্তরাজ্য) থেকে বাণিজ্যিক আইনে স্নাতকোত্তর ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অপরাধ ও বিচার বিভাগেও পড়াশোনা করেছেন। একজন প্রার্থী হিসাবে তিনি বাংলাদেশের পোশাক শিল্প সম্পর্কে বিরল ধারণা এবং দৃষ্টিভঙ্গি তুলে ধরেন। তিনি বলেন পরিবর্তনের জন্য কাজ করার জন্য জ্ঞান এবং শক্তিতে তিনি সজ্জিত । তিনি বলেন যে এই শিল্পকে প্রভাবিত করছে নিয়ন্ত্রক সমস্যা “আমি বিভিন্ন নথির ম্যানুয়াল প্রসেসিংয়ে স্বল্প বিলম্ব কমানোর জন্য বন্ড এবং শুল্ক পদ্ধতির সরলীকরণ এবং ডিজিটালাইজেশন নিয়ে কাজ করতে চাই।যেহেতু আমি আইন বিষেশজ্ঞ সেখানে বিদেশী সালিশের ক্ষেত্রে সমস্যাগুলি সহজ করার পথে দৃঢ় ভাবে দায়িত্ব পালন করবো |

ফোরাম প্যানেল ইশতেহারে নেতারা বলেন, আমরা আসন্ন বিজিএমইএ নির্বাচনে বিজয়ী হলে ফিজিক্যাল, ভার্চুয়াল ও হাইব্রিড পদ্ধতিতে দূতাবাসকেন্দ্রিক রোডশো করা হবে। নিজস্ব প্রোডাকশন হাউজ স্থাপন করা হবে, যার মাধ্যমে অডিও-ভিজুয়্যাল ও ইনফোগ্রাফিক তৈরি করে তাৎক্ষণিক প্রচার করা সম্ভব হবে। রাষ্ট্রপতি ভবন ও পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে গার্মেন্টসসহ রফতানিযোগ্য অন্যান্য পণ্যের গ্যালারি তৈরি করা হবে। যাতে ভ্রমণরত বিদেশি অংশীজন আমাদের রফতানিযোগ্য পণ্য সম্পর্কে ধারণা পেতে পারে।

ঢাকার ২৬ পরিচালক ফোরামের প্রার্থীরা হলেন—ড. রুবানা হক, এ বি এম সামসুদ্দিন, আনোয়ার হোসেন চৌধুরী, শিহাবুদৌজা চৌধুরী, এনামুল হক খান, ভিদিয়া অমৃত খান, কামাল উদ্দিন, মাশিদ রুম্মান আবদুল্লাহ, এম এ রহিম, শাহ রিয়াদ চৌধুরী, মিজানুর রহমান, খান মনিরুল আলম, এ এম মাহমুদুর রহমান, নাফিস উদ দৌলা, আসিফ ইব্রাহিম, মজুমদার আরিফুর রহমান, তাহসিন উদ্দিন খান, নাভিদুল হক, রশীদ আহমেদ হোসাইনী, ইকবাল হামিদ কোরাইশী, মাহমুদ হাসান খান, রেজওয়ান সেলিম, ফয়সাল সামাদ, রানা লায়লা হাফিজ, মেজবাহ উদ্দিন আলী ও নজরুল ইসলাম।

‘অর্জনে আপোষহীন, সংকটে সহযোদ্ধা’ এই শ্লোগানকে ধারণ করে বিজিএমইএ এর ‘সম্মিলিত পরিষদ’ নির্বাচনের ইশতেহার ঘোষণা করেছে।

আমরা নির্বাচিত হলে, সরকার ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের সঙ্গে কার্যকরী আলোচনার ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে, যেন এলডিসি গ্রাজুয়েশনে শুল্কমুক্ত পণ্য রপ্তানী সুবিধা অব্যাহত থাকে। পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে রোড শো’র আয়োজন- দক্ষিণ কোরিয়া, জাপান, ল্যাটিন আমেরিকা, ভারতসহ সম্ভাবনাময় নতুন বাজারগুলোতে রোড শো আয়োজন এবং গুরুত্বপূর্ণ মেলাগুলোতে বিজিএমইএ সদস্যদের অংশগ্রহন। আগামীর দিন হলো প্রযুক্তির। চতুর্থ শিল্প বিপ্লব মোকাবেলায় কারখানাগুলোর দক্ষতা ও শ্রমিকদের কর্ম দক্ষতা বৃদ্ধির বিষয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনা ও নীতি নির্ধারণ করা, যেন চতুর্থ শিল্প বিপ্লবকে ত্বরাণ্বিত করা সম্ভব হয়। বিজিএমইএ এর সদস্যদের অনলাইনে পোষাক বিক্রির দক্ষতা ও সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষে আমাজন, জালান্দসহ বিশ্বের জনপ্রিয় ই কমার্স প্ল্যাটফরমের সঙ্গে বিজিএমইএ এর চুক্তি সম্পাদন করা হবে।

ঢাকার ২৬ পরিচালক পদের জন্য সম্মিলিত পরিষদের প্রার্থীরা হলেন—ফারুক হাসান, শহিদুল হক, আবদুল্লাহ হিল রাকিব, শহীদউল্লাহ আজিম, নীলা হোসনে আরা, মহিউদ্দিন রুবেল, জাহাঙ্গীর আলম, খন্দকার রফিকুল ইসলাম, শিরিন সালাম, তানভীর আহমেদ, ইন্তেখাবুল হামিদ, কফিল উদ্দিন আহমেদ, ইমরানূর রহমান, আশিকুর রহমান, মিরান আলী, খসরু চৌধুরী, মশিউল আজম, নাছির উদ্দিন, এস এম মান্নান, শোভন ইসলাম, মোহাম্মদ কামাল উদ্দিন, হারুন অর রশীদ, আরশাদ জামাল, আসিফ আশরাফ, সাজ্জাদুর রহমান মৃধা ও রাজীভ চৌধুরী।

এই ৫জন মহিয়সী নারী ক্যান্ডিডেট জয়ী হলে তারা দেশকে আরো এগিয়ে নিয়ে যাবেন। তাদের হাত ধরে বাংলাদেশের বৃহত্তম রপ্তানি খাতের লক্ষ্য লক্ষ্য নারী কর্মীদের জীবনমানে আসবে আরো উন্নয়ন ,সুরক্ষা ও আত্মনির্ভরতা এবং এভাবেই তৃণমূলের নারীরা ক্ষমতায়িত হবে ও এগিয়ে যাবে দেশ গঠনে । এই মহিয়সী নারীদের জন্য রইলো শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন। হারনেট টিভি সর্বদা আপনাদের পাশে আছে এবং থাকবে।

আগমীকাল ৪এপ্রিল ঢাকায় হোটেল র‌্যাডিসন ব্লুতে এবং চট্টগ্রামে বিজিএমইএ আঞ্চলিক কার্যালয়ে সকাল ১০টা থেকে বিকাল ৫টা পর্যন্ত এই নির্বাচনের ভোট গ্রহণ করা হবে। চূড়ান্ত ভোটার তালিকায় ঢাকা অঞ্চলে ১ হাজার ৮৫৩ জন এবং চট্টগ্রাম অঞ্চলে ৪৬১ জন ভোটার রয়েছেন।

Written by Alisha Pradhan

By HerNet

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *